হানিফ সংকেতের ইত্যাদি খুলে দেয় এক নতুন দিগন্ত

0
4

হানিফ সংকেতের ইত্যাদি এ দেশের টেলিভিশন অনুষ্ঠানকে দিয়েছে এক উচ্চমাত্রার শৈল্পিক মান।

দর্শকদের বিচারে এখনো অনুষ্ঠানটির প্রতিটি পর্ব যেন তার আগের পর্বকেই ছাড়িয়ে এক নতুন দিগন্তের উন্মোচন করে।

আর দর্শকরাও অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করেন তাদের প্রিয় এ অনুষ্ঠানটির জন্য। আর ইত্যাদির সুচিন্তক নির্মাতা উপস্থাপক হানিফ সংকেতও দর্শকদের বিমুখ করেন না।

সম্প্রতি অনুষ্ঠানটির একটি পর্ব নাচ, গান, সামাজিক নানা অসংগতির চিত্র ও প্রতিবেদন দর্শকদের যেমন নির্মল আনন্দ দিয়েছে, তেমনই অনেকের বিবেকবোধকে জাগিয়ে দিতে আঘাত করেছে মর্মমূলে।

এ ছাড়াও প্রতিবারের মতো এবারও অন্তরালে লুকিয়ে থাকা ভালো মনের আলোকিত মানুষকে খুঁজে সমাজের সামনে নিয়ে এসেছে শিকড় সন্ধানী ইত্যাদি।

বাংলাদেশ নৌবাহিনীর সদস্যদের সমুদ্রে সাহসী আর শান্তিরক্ষার নানা ভূমিকা নিয়ে প্রতিবেদন ছিল এবারের ইত্যাদির এক রোমাঞ্চকর অভিজ্ঞতা।

নৌবাহিনী নিয়ে নির্মিত পর্বগুলো যেমন উপভোগ্য তেমনি ছিল আকর্ষণীয়। দেশের প্রতিটি বাহিনী সম্পর্কেই ইত্যাদিতে প্রতিবেদন হওয়া উচিত।

তাহলে দেশের আপামর মানুষ এসব দেশরক্ষা বাহিনীর কর্মকাণ্ড সম্পর্কে জানতে পারবে।

নৌবাহিনীর প্রতিবেদনের পরই হানিফ সংকেতের ছান্দসিক নান্দনিক উপস্থাপনায় আসতে থাকে একের পর এক চমৎকার সব পর্ব।

নৌবাহিনীকে নিয়ে রচিত গানের সঙ্গে নাচটি ছিল দৃষ্টিনন্দন। এর পরই করোনাকে পুঁজি করে এক কাপড় ব্যবসায়ীর অভিনব ব্যবসা যা করোনাকালে মানুষকে সচেতনতার বার্তা দিয়েছে।

অন্যদিকে সমাজের প্রতিটি ক্ষেত্রে যখন অনৈতিক কর্মকাণ্ডের বিষবৃক্ষ বেড়েই চলেছে, ঠিক তখন বীর মুক্তিযোদ্ধা তার ভাতার টাকা দিয়ে দুস্থ অসহায় শিশুদের নৈতিকতা শিক্ষা দিতে খুলেছেন প্রশংসনীয় নৈতিক স্কুল।

এমন একটি মহৎ প্রতিবেদনের পরই বিশ্বাস আর অবিশ্বাসের ওপর দেশীয় ব্র্যান্ডবিষয়ক নাট্যাংশটি ছিল বক্তব্যধর্মী।

শব্দকে স্থান-কাল ভেদে সঠিকভাবে প্রয়োগ না করতে পারলে কী ঘটে তার বাস্তব চিত্রই যেন উঠে এসেছে দুই নম্বর নামক পর্বটিতে।

খেজুর গুড়ের গূঢ় রহস্য নিয়ে প্রচারিত প্রতিবেদনটিতে উঠে এসেছে আসল গুড় না পাওয়ার নানাদিক।

পিঠাকে কেন্দ্র করে উপস্থাপিত টকশোটিও ছিল দারুণ উপভোগ্য। ঝিনাইদহের মহেশ্বরচাঁদা গ্রামের দরিদ্র কৃষক হেলালউদ্দিনের জীবনের সুন্দর আর মহৎ কর্মের গল্প ছিল শিক্ষণীয়।

যে গল্প থেকে সমাজের বহু পরিবেশকর্মী, নীতিনির্ধারক, স্বঘোষিত সমাজকর্মীদের শেখার আছে অনেক কিছু।

টিকটক না করে ঠিক টক করার জন্য ডাক্তারি পরামর্শ, যন্ত্রের যন্ত্রণা ও নানা-নাতির রসালো বক্তব্য ছিল সময়োপযোগী।

সুন্দর আর মানবিক এক পুলিশ সার্জেন্ট মৃত্যুঞ্জয়ের পাখিদের প্রতি প্রেমের চিত্র ইত্যাদির চোখে দেখে প্রাণ জুড়িয়ে যায়।

সব কিছু যে এখনো নষ্টদের অধিকারে চলে যায়নি তারই এক বাস্তব চিত্র পাখিদের নিয়ে মৃত্যুঞ্জয়ের এ প্রতিবেদন।

ইত্যাদির একেবারে শেষ প্রান্তের অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে উঠে এসেছে এক অনবদ্য আত্মপ্রত্যয়ী দিনমজুর তরুণ কবি ও সাংবাদিক হাসান পারভেজের অসাধারণ জীবনকাব্য।

যে প্রত্যন্ত দরিদ্র পল্লিতে বাস করেও স্বপ্ন বুনে চলেছেন একটি সুন্দর মানবিক পরিচ্ছন্ন সমাজ গঠনের।

হাসান পারভেজের শিক্ষাগ্রহণ এবং তার আন্ধারমানিক পত্রিকাটি সুন্দরভাবে চালিয়ে নেওয়ার জন্য দেওয়া হয়েছে দুই লাখ টাকার চেক।

সব মিলিয়ে অসাধারণ এক ইত্যাদি উপভোগ করেছে দর্শক।

ইত্যাদির অন্যসব পর্বের মতো এবারও বরেণ্য নির্মাতা হানিফ সংকেত যেনো খুলে দিয়েছেন অগণিত মানুষের দৃষ্টির সীমা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here